বরুড়ায় চাঞ্চল্যকর শিশু খুন ও গুমের ৯৬ ঘন্টার মধ্যেই রহস্য উদঘাটন, আসামী গ্রেফতার ও আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি

গত ৩১/০৩/২০১৬খ্রিঃ দুপুর ১৩.৪৫ ঘটিকা হইতে ০২/০৪/২০১৬খ্রিঃ যে কোনো সময় বরুড়া থানাধীন শাকপুর সাকিনস্থ বাদী আবুল কাশেম, পিতা-মৃত মোবারক হোসেন, সাং-শাকপুর (পশ্চিমপাড়া), থানা-বরুড়া, জেলা-কুমিল্লা এর ছেলে সূত্রোক্ত মামলার ভিকটিম ইব্রাহিম খলিল (০৭) কে অজ্ঞাতনামা আসামী কর্তৃক হত্যা ও বাদীর বড় ভাই আবুল বাশারের সেফটি ট্যাংকির ভিতরে লাশ গুম করার ঘটনায় ১। হোসনেয়ারা বেগম (৩৫), স্বামী-আবুল বাশার, সাং-শাকপুর (পশ্চিমপাড়া), থানা-বরুড়া, জেলা-কুমিল্লাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃত আসামীকে জিজ্ঞাসাবাদে সে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানায় যে, অত্র মামলার ভিকটিম ইব্রাহিম খলিল (০৭) উক্ত আসামীর দেবরের ছেলে। আসামীর সহিত তাহার দেবরের পরিবারের সহিত সাংসারিক বিভিন্ন বিষয় নিয়া বিরোধ চলিয়া আসিতেছে। ঘটনার দিন গত ৩১/০৩/২০১৬খ্রিঃ বৃহস্পতিবার দুপুর অনুমান ১২.০০ ঘটিকার সময় উক্ত আসামী তাহার নিকটস্থ লতার বাড়ীর শাহ আলমের স্ত্রী মুন্নীকে খোঁজ করিতে তাহাদের বাড়ীর দিকে যায়। মুন্নীর বাড়ীর রাস্তায় যাইয়া উক্ত আসামী লতার বাড়ীর রাস্তার মুখে মুন্নীকে অপর একজন মহিলা সহ দাঁড়াইয়া আছে দেখিলে তাহাদের কাছে যায়। সেই খানে তাহাদের সহিত কথোপকথনরত অবস্থায় রাস্তার মাথায় একজন আইসক্রিমওয়ালা আসিলে অত্র মামলার ভিকটিম ইব্রাহিম খলিল তাহার বাড়ী হইতে ০৩টি ভাঙ্গা টিন নিয়া আসিয়া আইসক্রিমওয়ালাকে দিলে বিনিময়ে আইসক্রিমওয়ালা ভিকটিম ইব্রাহিম খলিলকে ০২টি আইসক্রিম দেয়। ভিকটিম আইসক্রিম নিয়া ফেরার সময় নিকটে থাকা উক্ত আসামী ভিকটিমের নিকট একটি আইসক্রিম চাহিলে ভিকটিম ইব্রাহিম তাহাকে একটি আইসক্রিম দিয়া বাড়ীর দিকে যায়। কিছুক্ষণপর ইব্রাহিম খলিল লতার বাড়ী আসিয়া তাহার বন্ধুদের সহিত ফুটবল খেলার সময় উক্ত আসামী ভিকটিম ইব্রাহিম খলিলকে লক্ষ্য করিয়া লতার বাড়ীর শাহ আলমের স্ত্রী মুন্নীকে নিয়া আসামীর ঘরের ফ্রিজে থাকা মুন্নীর মাছের প্যাকেট ফেরত দেওয়ার জন্য নিজ ঘরে যায়। শাহ আলমের স্ত্রী উক্ত আসামীর ঘর হইতে ফিরিয়া আসার অনুমান দেড় ঘন্টা পর আসামী দুপুর অনুমান ১৪.৩০ ঘটিকার সময় বৃষ্টির মধ্যে ঘর হইতে বাহির হইয়া তাহার ঘরের সম্মুখস্থ ফিরোজের উঠান হইতে লক্ষ্য করে ভিকটিম ইব্রাহিম খলিল একা একা বাড়ীর পুকুরের পাড় দিয়া পূর্ব দিকে যাইতেছে। আসামী ভিকটিম ইব্রাহিমকে অনুসরন করিয়া পিছনে পিছনে যাইয়া দেখিতে পায় ভিকটিম ইব্রাহিম খলিল সোলেমানের মাছের প্রজেক্ট প্রকাশ সুলু দুলুর মাছের প্রজেক্টে একা একা পানির মধ্যে খেলা করিতেছে। মাছের প্রজেক্টের পাড় হইতে ইব্রাহিম খলিলকে ডাক দিয়া উক্ত আসামী ভিকটিমকে তাহার নিজ ঘরে নিয়া যায়। আসামী ভিকটিম ইব্রাহিম খলিলকে নিয়া তাহার ঘরে যাওয়ার পর ঘরের দরজা লাগাইয়া ঘরের মাঝখানের রুমের খাটের কানার কাছে গলা টিপিয়া হত্যা করিয়া খাটের নিচে ফেলিয়া রাখে। সন্ধ্যা অনুমান ১৯.০০ ঘটিকার সময় উক্ত আসামী তাহার বসত ঘর সংলগ্ন সেফটি ট্যাংকির মধ্যে ভিকটিম ইব্রাহিম খলিলের মৃত দেহ ফেলিয়া সেফিটি ট্যাংকির ঢাকনা লাগাইয়া মৃত ইব্রাহিম খলিলের লাশ গোপন করে। ভিকটিম ইব্রাহিম খলিলের মৃত দেহ খাটের নিচ হইতে বাহির করার পর ইব্রাহিম খলিলের গলায় একটি তার পেঁচাইয়া শক্ত করিয়া বাঁধিয়া দেয় বলিয়া উক্ত আসামী জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করে। এবং সে ০৭ নং বিজ্ঞ জেলা ও দায়রা জজ মহোদয়ের নিকট ১৬৪ ধারা মোতাবেক জবানবন্দী প্রদান করেন।

গ্রেফতারকৃত আসামীর নাম ঠিকানা ঃ ১। হোসনেয়ারা বেগম (৩৫), স্বামী-আবুল বাশার, সাং-শাকপুর (পশ্চিমপাড়া), থানা-বরুড়া, জেলা-কুমিল্লা।


ভিকটিম এর নাম ঠিকানাঃ ১। ইব্রাহিম খলিল (০৭), পিতা-আবুল কাশেম, সাং-শাকপুর (পশ্চিমপাড়া), থানা-বরুড়া, জেলা-কুমিল্লা


হত্যার কারণঃ পারিবারিক কলোহের জের।

সূত্রঃ    বরুড়া থানার মামলা নং-০৩, তারিখ-০২-০৪-২০১৬খ্রিঃ, ধারা-৩০২/২০১/৩৪ দঃ বিঃ।

Read 4746 times