আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় প্রযুক্তির ব্যবহারের মাধ্যমে জননিরাপত্তায় প্রশংসনীয় অবদান রাখায় দেবিদ্বার থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মিজানুর রহমান কে পুরষ্ককার

আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় প্রযুক্তির ব্যবহারের মাধ্যমে জননিরাপত্তায় প্রশংসনীয় অবদান রাখায় দেবিদ্বার থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মিজানুর রহমান কে স্বীকৃতি দিয়েছে জেলা পুলিশ সুপার। গত ১৮ নভেম্বর বিকেলে জেলা পুলিশ সুপারের সম্মেলন কক্ষে কুমিল্লার পুলিশ সুপার জনাব টুটুল চক্রবর্তী উক্ত রূপ প্রশংসনীয় কাজের জন্য দেবিদ্বার থানার অফিসার ইনচার্জ মিজানুর রহমান এর হাতে ক্রেষ্ট এবং সার্টিফিকেট তুলে দেন। এর আগেও তিনি দু’বার জেলার শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জ নির্বাচিত হয়ে জেলা পুলিশ কর্তৃক পুরস্কৃত হন।
উল্লেখ্য দেবিদ্বার পৌর মার্কেট এলাকায় নিরাপত্তা ঝুঁকি মোকাবেলায় গত অক্টোবর/১৪ মাসে দেবিদ্বার থানার অফিসার ইনচার্জ উদ্যেগ নিয়ে পৌর মার্কেট মালিকদের সমন্বয়ে গঠন করেন কমিউনিটি পুলিশিং কমিটি। উক্ত কমিটির ব্যবস্থাপনায় স্থানীয় সংসদ সদস্য জনাব রাজী মোঃ ফখরুলের সার্বিক নির্দেশনায় ও সহযোগীতায় এবং জেলা পুলিশ সুপার জনাব টুটুল চক্রবর্তী’র প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে বাজারের ব্যবসায়ী ও সমাজসেবীদের অর্থায়নে পুরো পৌর মার্কেট এলাকায় ২০টি আই.পি (ইন্টারনেট প্রটোকল) ক্যামেরা স্থাপন করেন ওসি। পুরো মার্কেট এলাকা চলে আসে পুলিশী মনিটরিং এর মধ্যে এবং ওসি অফিসে বসেই ক্যামরার পরিস্থিতি পর্যবেক্ষন করেন। এরই ফলশ্রুতিতে দেবিদ্বার পৌর এলাকায় চুরি, ইভটিজিং, সন্ত্রাসী দৌরাত্ব সহ অপরাধ মূলক কার্যকলাপ প্রায় শূন্যের কোটায় নেমে এসেছে। চলতি নভেম্বর মাসে ০৮ তারিখে জনবহুল ব্যস্ত নিউমার্কেট মোড় সংলগ্ন জনতা ব্যাংকের সামনে থেকে একটি সিএনজি চুরি করে নিয়ে যায় চোর। উক্ত আই.পি ক্যামরার মাধ্যমে পুলিশ পর্যবেক্ষন করে দেখে যে, বেলা অনু: ০১.০৫ থেকে ০১.০৭ ঘটিকার মাঝামাঝি মাত্র দেড় মিনিটেই মধ্যে একজন চোর সিএনজি টি কৌশলে চালু করে চুরি করিয়া নিয়া যায়। পুলিশ উক্ত আই.পি ক্যামরার মাধ্যমে মাত্র ০৩ ঘন্টার মধ্যে সিএনজি চোরকে সনাক্ত করে চোরাই যাওয়া সিএনজি উদ্ধার সহ ঘটনার সহিত জড়িত আসামীকে গ্রেফতার করিতে সক্ষম হয়।
এছাড়াও মোহনপুর বাজারের ব্যবসায়ী নারায়ন পাল হত্যার রহস্য উদঘাটন এবং মাত্র ৩০ ঘন্টার মধ্যে খুনীকে সনাক্ত করে গ্রেফতার এবং আলামত উদ্ধার সহ অপরাধীকে বিজ্ঞ আদালতে তাহার দোষ স্বীকার করিয়া কাঃ বিঃ ১৬৪ ধারা জবানবন্দি রেকর্ড করে। উক্ত মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা দেবিদ্বার থানার এস আই রোকেয়া খানম কে ক্রেষ্ট ও সার্টিফিকেট তুলে দেন পুলিশ সুপার জনাব টুটুল চক্রবর্তী।

Read 918 times